|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

  ধর্ম ও জীবন
  ওজুতে মোজার ওপর মাসেহ করা যাবে কি?
  Publish Time : 23 January 2020, 11:09:34:PM

ধর্ম ডেস্ক : ওজুর সময় মোজা না খুলে উভয় পা মাসেহ করা যাবে এতে কোনো সন্দেহ নেই। পা না ধুয়ে মোজার ওপর মাসেহ করলেই ওজু হয়ে যাবে। যেহেতু মোজার উপর মাসেহ করার বিষয়টি হাদিসে বর্ণিত হয়েছে।

কিন্তু সমস্যা হলো মোজা নিয়ে। সব ধরণের মোজার ওপর মাসেহ করা যাবে কি? মোজার উপর মাসেহ করতে হলে সে মোজা কিসের হতে হবে? এ প্রসঙ্গে হাদিসের বর্ণনাই বা কী?

মোজা যদি চামড়ার তৈরি হয় তবে তাতে মাসেহ করা যাবে, আর যদি সুতা বা কপড়ের তৈরির হয় তবে তাতে ওজু করা যাবে না বলে সমাজে প্রচলিত রয়েছে। মোজা তৈরির উপর ভিত্তি করেই কেউ বলেছেন বৈধ আর কেউ বলেছেন ওজু করা যাবে না।

আরবিতে চামড়ার তৈরি মোজাকে ‘খুফ’ আর সুতার তৈরি মোজাকে ‘জাওরাব’ বলা হয়। হাদিসে উভয় ধরনের মোজার উপর মাসেহ করার কথাই এসেছে।

তবে চামড়ার মোজার উপর মাসেহ করা সর্ব সম্মতিক্রমে বৈধ। এটা নিয়ে কারো কোনো মতপার্থক্য নেই। আর সুতার তৈরি মোজার উপর মাসেহ করা বৈধ কিনা- এ বিষয়ে দ্বিমত থাকলেও অনেকেই কাপড়েরর মোজার উপর মাসেহ করাকে সঠিক বলেছেন।

মোজা পাতলা হোক আর মোটা হোক, চামড়ার হোক কিংবা সুতার হোক সব ধরনের মোজার উপর মাসেহ করা বৈধ বলেছেন প্রখ্যাত ইসলামিক স্কলার ইবনে হাযম ও ইবনে তাইমিয়া। তাদের সমর্থন করেছেন মুহাম্মাদ ইবনে উসাইমিন এবং আল্লামা শানক্বিতি।

জাওরাব-এর উপর মাসেহ
জাওরাব বা সুতার তৈরি মোজার উপর মাসেহ করা যাবে মর্মে তারা দুইটি হাদিস তুলে ধরেছেন। আর তাহলো-
>> হজরত মুগিরা ইবনে শোবা রাদয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, নিশ্চয় রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ওজুর করলেন এবং জাওরাব ও দু জুতার উপর মাসেহ করলেন।’ (আবু দাউদ, তিরমিজি, আহমদ)
>> হজরত আযরাক্ব ইবনে কায়স রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, আমি আনাস ইবনে মালেক রাদিয়াল্লাহু আনহুকে লক্ষ্য করেছি, তিনি বায়ু নিঃসরণ হলে তাঁর চেহারা ও দুহাত ধৌত করতেন এবং পশমের তৈরি জাওরাবের উপর মাসেহ করতেন। আমি তাকে জিজ্ঞাসা করলাম, আপনি কি জাওরাবের উপর মাসাহ করলেন? তিনি বললেন, এ দু’টি মোজা; যা পশমের তৈরি।’ (আলকুনি)

দ্বীন পালনকে সহজ করার জন্যই মোজার উপর মাসেহ করার বিধান এসেছে হাদিসে পাকে। দ্বীনকে সহজ করার ব্যাপারে কুরআনে নির্দেশনা এসেছে। । আল্লাহ তাআলা বলেন-
‘আল্লাহ তাআলা তোমাদের অসুবিধায় ফেলতে চান না; কিন্তু তিনি তোমাদের পবিত্র রাখতে চান এবং তোমাদের প্রতি স্বীয় নেয়ামত পূর্ণ করতে চান-যাতে তোমরা কৃতজ্ঞাতা প্রকাশ কর।’ (সুরা মায়েদা : আয়াত ৬)

মোজার উপর মাসেহ করার বিধান দেয়ার পর বার বার মোজা খুলে তা পরার সমস্যা ও অন্যান্য কষ্ট থেকে মানুষ মুক্তি পেয়েছে।

জাওরাব-এর উপর মাসেহ করার হাদিসগুলো ১১ জন প্রসিদ্ধ সাহাবি বর্ণনা করেছেন। যাদের অন্যতম হলেন- হজরত ওমর, হজরত আবদুল্লাহ ইবনে ওমর, হজরত আলি, হজরত ইবনে মাসউদ ও হজরত আনাস রাদিয়াল্লাহু আনহুম প্রমুখ সাহাবিগণ।

তবে জমহুর ওলামায়ে কেরাম পাতলা জাওরাবের উপর মাসেহ করতে নিষেধ করেছেন। তারা বলেছেন, ‘পাতলা জাওরাব দ্বারা ফরজের স্থান ঢাকা হয় না। আর এ শর্ত মোজার উপর মাসেহ বৈধ হওয়ার শর্ত নয় বলে উল্লেখ করেছেন অন্যান্য আলেমরা।

উল্লেখ্য যে, মোজার ওপর মাসেহ করার বিষয়টি শীত প্রধান অঞ্চল এবং সফরের জন্যই বেশি প্রযোজ্য। শীত প্রধান অঞ্চলে ১ দিন এবং সফরের সময় ৩ দিন পর্যন্ত মোজার উপর মাসেহ করা যায়।

মোজার উপর মাসেহ নিয়ে বাড়াবাড়ি নয়, বরং এটা একটা প্রয়োজন। যা আল্লাহ বান্দার জন্য সহজ করার কথা উল্লেখ করার কারণেই করা হয়েছে।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে ইসলামের সঠিক দিক-নির্দেশনায় জীবন গড়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।



   শেয়ার করুন
Share Button
সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট : 196        
   আপনার মতামত দিন



চেয়ারম্যান: আবুল কালাম আজাদ
কো-চেয়ারম্যান: দেলোয়ার হোসেন।
সম্পাদক: সেহলী পারভীন।
সামসুন নাহার কমপ্লেক্স (৫ম তলা), ৩১/সি/১ তোপখানা রোড, সেগুনবাগিচা, ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ।
টেলিফোন : ০২ ৯৫৫২৯৭৮, ইমেইল : toronggotv@gmail.com, toronggotvnews@gmail.com






   © সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Dynamic Solution IT   Dynamic Scale BD