|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

  আন্তর্জাতিক
  ইরাকের শ্রমবাজার হারানোর শঙ্কা করোনায় আক্রান্ত ২২৯৬ জন, মারা গেছে ৯৭ জন
  Publish Time : 18 July 2020, 9:01:6:AM

মিয়া আবদুল হান্নান : প্রাচীন ব্যাবিলনীয় সভ্যতারধারক ইরাকে বৈধ-অবৈধমিলিয়ে আড়াই লক্ষাধিকবাংলাদেশি কর্মরত। আশারখবর হলো- দূতাবাস ও বাংলাদেশ কমিউনিটি বলছে, এ পর্যন্ত তাদেরকেউই করোনায় আক্রান্ত হননি। আর দুঃসংবাদ হলো-করোনার করাল গ্রাসেক্ষতিগ্রস্ত হবে ইরাকের শ্রমবাজার, যার জেরে অদূর ভবিষ্যতে চাকরি হারানোরশঙ্কা রয়েছে অনেকবাংলাদেশির। আসন্ন এসংকট উত্তরণে অবশ্য সক্রিয়বাগদাদের বাংলাদেশ দূতাবাস।জানা গেছে, করোনায় উপসাগরীয় যুদ্ধবিধস্ত ইরাকের অর্থনীতি সংকটে পড়েছে।

বিশ্ববাজারে তেলের দামরেকর্ড কমে যাওয়ায় অর্থনীতির ওপর চাপ বাড়ছে।মহানারী করোনা ভাইরাসের কারণে বড় বড় প্রজেক্টের কাজ বন্ধ। ফলে তারাকর্মী ছাঁটাই শুরু করেছে। ফলে এখানে কর্মরত বাংলাদেশি অনেক শ্রমিকেরই স্বদেশে চলে আসতে হতে পারে।বাগদাদের বাংলাদেশ দূতাবাস বলছে, ইরাকে সবকিছু বন্ধ থাকায় বড় বড়নির্মাণ প্রকল্পে যেসব শ্রমিক কাজ করছেন তাদের ছাঁটাইয়ের সিদ্ধান্ত নিচ্ছে কোম্পানিগুলো।এটি সরকারের সিদ্ধান্তনয়। এতে তাদের একটি অসৎ উদ্দেশ্যও আছে। যদি শ্রমিক ছাঁটাই করতে পারে, তা হলে করোনা-পরবর্তী সময়ে নতুন শ্রমিক নিয়োগের বদৌলতে দালাল চক্রের বাড়তি অর্থ কামানোর একটা পথ তৈরি হবে।
এ বিষয়ে বাংলাদেশ দূতাবাসের দূতালয় প্রধান অহিদুজ্জামান লিটন বলেন,করোনাকালে নয়, বাংলাদেশি কর্মীরা ব্যাপক হারে চাকরি হারা হবেন করোনা-পরবর্তী সময়ে।

তখনকার নানামুখী সংকটের আশঙ্কায় দূতাবাস চিন্তিত। আর এ জন্য দূতাবাসপরিস্থিতি সামলে নিতেএখন থেকেই প্রস্তুতি গ্রহণ করতে চায়। আমরা ইরাকের সরকার, সংশ্লিষ্টকোম্পানিসহ সবার সঙ্গেআলোচনা অব্যাহতভাবেচালিয়ে যাচ্ছি।তিনি জানান, ইরাকে এপর্যন্ত কোনো বাংলাদেশিকরোনায় আক্রান্ত না হলেওসব কিছু বন্ধ থাকায়খাদ্যসংকটে পড়েছেনঅনেকে। বিশেষ করে যাদেরবৈধ কাগজপত্র নেই, যারা দৈনিক ভিত্তিতে কাজ করেন তারা সমস্যায় পড়েছেন বেশি। বাংলাদেশ দূতাবাসতাদের খাদ্য সহায়তা দিয়ে যাচ্ছে। তবে সেটি পর্যাপ্তনয়।অহিদুজ্জামান লিটন বলেন,বেশ বিপাকে থাকা প্রায়১৫০০ বাংলাদেশিকেদূতাবাস অর্থ এবং খাদ্যসহায়তা দিয়েছে।কমিউনিটি বিশেষতবার্জানি ফাউন্ডেশন এবংআইওএমের মাধ্যমে আরও
কয়েক হাজার বাংলাদেশিকেসহায়তা দেওয়া হয়েছে।শিগগির আরও ১ হাজারজনকেসহায়তা দেওয়া হবে।এদিকে রাষ্ট্রদূত আবুমাকসুদ এম ফরহাদস্বাক্ষরিত বার্তায় জরুরিপ্রয়োজনে দূতাবাসের৩টি হটলাইন নম্বরেযোগাযোগের জন্য বিপাকেপড়া বাংলাদেশি কর্মীদেরঅনুরোধ করা হয়েছে।হটলাইনে যারা যোগাযোগ করছেন, তাদের সহায়তাদেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে বলেদূতাবাস সূত্রে জানাগেছে।ইরাকে বেশ গতি নিয়েইআঘাত করেছিল বিশ্বব্যাপীতা-ব চালানো করোনা। প্রথমআগ্রাসন চালায় দেশটিরনাজাফ প্রদেশে।

এরপর অন্যপ্রদেশগুলোতেও ছড়িয়ে পড়তেথাকে; প্রতিবেশী ইরান ওতুরস্কে নেয় সর্বগ্রাসীরূপ। অবস্থা বেগতিক দেখে যুদ্ধবিধ্বস্ত ইরাকেরপ্রশাসন উদ্যোগী হয়। দ্রুতকমিয়ে দেওয়া হয় অফিসেরসময়, বন্ধ করে দেওয়া হয় স্কুল-কলেজ, সিনেমা হল এবংক্যাফে-রেস্তোরাঁর মতোজনসমাগমের স্থানগুলো।নামাজের জামাতেও সরকারেরতরফে বিধিনিষেধ আরোপকরা হয়। দেশি-বিদেশি সবনাগরিকের চলাফেরায়বিধিনিষেধ আরোপ ওস্বাস্থ্যগত নির্দেশনা প্রদান করা ছাড়াও ইরাকের একপ্রদেশ থেকে অন্য প্রদেশেযাতায়াত বন্ধ করে দেওয়া হয়।অন্য দেশের সঙ্গে আকাশ,সড়ক ও নৌ যোগাযোগওপুরোপুরি বন্ধ করে দেওয়া হয়।দেশটিতে করোনার সংক্রমণধরা পড়ে গত ২৪ফ্রেব্রুয়ারি।আড়াই মাস ধরে সেখানেচলছে এ মহামারীর তা-ব। তবেকঠোর কারফিউর কারণেকরোনা সর্বগ্রাসী হতে পারেনি গত সপ্তাহ পর্যন্ত।ঈদ পর্যন্ত ‘কড়াকারফিউ’ কিছুটা শিথিলকরেছে ইরাক। রমজানমাসজুড়ে দিনে সীমিতসংখ্যক দোকান, মার্কেটখোলা থাকবে। তবে স্টাফ ২৫ভাগের বেশি রাখা যাবে না।সন্ধ্যা ৭টার মধ্যে দোকানবন্ধ করতে হবে। আর কারফিউরএই শিথিলতায় আক্রান্তেরসংখ্যা আবার বাড়তে শুরুকরেছে। গতকাল পর্যন্ত ইরাকেকরোনায় আক্রান্ত হয়েছেন২২৯৬ জন; মারা গেছেন ৯৭জন এবং সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১৪৪০ জন।



   শেয়ার করুন
Share Button
সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট : 26        
   আপনার মতামত দিন



চেয়ারম্যান: আবুল কালাম আজাদ
কো-চেয়ারম্যান: দেলোয়ার হোসেন।
সম্পাদক: সেহলী পারভীন।
সামসুন নাহার কমপ্লেক্স (৫ম তলা), ৩১/সি/১ তোপখানা রোড, সেগুনবাগিচা, ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ।
টেলিফোন : ০২ ৯৫৫২৯৭৮, ইমেইল : toronggotv@gmail.com, toronggotvnews@gmail.com






   © সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Dynamic Solution IT   Dynamic Scale BD